কোষাধ্যক্ষ নিয়োগের গল্প

অনেক প্রাচীন কালের কাহিনী এটি। এক রাজা তার রাষ্ট্রীয় কোষাগারে একজন সৎ ও আল্লাহভীরু কোষাধ্যক্ষ (Treasurer) নিযুক্ত করতে চাইলেন। যে কিনা হাজারো সুযোগ থাকা সত্বেও কোষাগারের একটি পয়সাও এদিক সেদিক করবেনা। কিন্তু কিভাবে বাছাই করা যাবে এমন ভাল লোক?  

অনেক চিন্তা ভাবনার পর তিনি এ পদের প্রার্থীদের আগমনের পথে একটি সুরংগ নির্মাণ করলেন এবং অতি গোপনে একজন বিশস্ত সংগী নিয়ে সুরংগ পথের এখানে সেখানে বেশ কিছু স্বর্ণমুদ্রা ফেলে রাখলেন। ইন্টারভিউ গ্রহণের দিন ঘনিয়ে এল। রাজা নির্দেশ দিলেন, কোষাধ্যক্ষ পদের প্রার্থীগন যেন একজন একজন করে এ সুরংগ পথ দিয়ে রাজার কাছে আসে এবং অবশ্যই একাকী আসতে হবে। 

সাক্ষাতকার শুরু হল। বহু লোক এল পরীক্ষা দিতে। সাক্ষাতকার পবের ফাকে রাজা কৌশল করে সকলেরই পকেট ও পোষাক তল্লাশী নিলেন। কেবল মাত্র একজন ছাড়া সকলেরই পকেটে কিছু কিছু স্বর্ণমুদ্রা পাওয়া গেল। রাজা সকলকে ডিসকোয়ালিফাইড করলেন, কেবল ঐ লোকটি ছাড়া, যার পকেটে কোন স্বর্ণমুদ্রা পাওয়া যায়নি।

রাজা তাকে একান্তে ডাকলেন এবং সুধালেন: সুরংগ পথে কি কোন স্বর্ণমুদ্রা তুমি দেখেছিলে?

হ্যা

তাহলে কুড়িয়ে নাওনি কেন? কেউতো তোমাকে দেখতোনা।

কেউ দেখতোনা বটে, কিন্তু আল্লাহতো দেখতেন। তার ভয়েই আমি ঐসব মুদ্রা নেয়া থেকে বিরত থেকেছি।

রাজা বললেন: আমি তোমাকে আমার কোষাগারের কোষাধ্যক্ষ নিয়োগ করলাম।

গল্পটি থেকে শিক্ষা:

এই একই কারনে আমাদের স্রষ্টা আল্লাহ রাব্বুল আলামীনও নিজেকে লুকায়িত রেখেছেন অর্থাৎ অবাধ্যতার কারনে তিনি সাথে সাথেই অপরাধীকে পাকড়াও করেননা। যদি তিনি তা করতেন (যেমনটা মুর্খ লোকদের দাবী) তাহলে মানবজাতিকে পরীক্ষার উদ্দেশ্যই (যার নিমিত্ত তিনি এ জগত সৃষ্টি করেছেন) পন্ড হয়ে যেতো।

আপনার রেটিং: None

Rate This

আপনার রেটিং: None