না, আত্মহত্যা নয়-

১/ আমার মনে হয় যারা আত্মহত্যা করে তারা পার্থিব প্রাপ্তিকেই সবার উপরে স্থান দেয়। কিন্তু সব মানুষের জীবনে এই পার্থিব প্রপ্তির হিসেবটা যে সমান হতে পারেনা, তা তারা হয় জানে না, কিংবা জানলেও মেনে নিতে পারে না।
২/ বিশেষ করে যারা স্রষ্টাকে বিশ্বাস করেনা এবং তকদিরেও বিশ্বাসী নয়, তারা অতিমাত্রায় বাস্তববাদী মনোভাবের কারনে যে কোন অপ্রাপ্তিকে শুধুমাত্র নিজেদের অক্ষমতা হিসেবেই ধরে নেয়। এভাবে এক ধরনের হীনমন্নতা বোধ থেকে তাদের হৃদয়ে পুঞ্জিভূত ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

৩/ আর যারা পরকালে বিশ্বাস করেনা তারা পৃথিবীকেই সকল প্রাপ্তি ও অপ্রাপ্তির একমাত্র সম্বল মনে করে। ফলে অতি অল্পেই জীবনের ব্যর্থতাগুলোকে সহজভাবে গ্রহণ করার সামর্থ হারিয়ে ফেলে। আজ অবস্থা খুবই জটিল, সমস্যা সঙ্কুল ও দুঃখের হলেও মহান স্রষ্টার ইচ্ছায় কিছুদিন পরেই যে এই সমস্যা ও জটিলতা দূর হয়ে সুখের জীবন রচিত হতে পারে, সেই বিশ্বাসটুকুও তারা হারিয়ে বসে। এই ভাবাবেগ থেকেই এক সময় তারা মানসিকভাবে এমনই ভেঙে পড়ে যে জীবন ঘিনষ্ট কঠিন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় নিজেদের উপর থেকে আস্থা হারিয়ে ফেলে। অবশেষে আত্মহননের পথ বেছে নেয়াকেই মুক্তির একমাত্র উপায় হিসেবে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলে।

হায়! তারা যদি ইসলামের শান্তির ছায়াতলে আশ্রয় পেত, তাহলে নিশ্চয় বোধহীনের মত নিজেদের উপরে এমন জুলুম এবং অন্যায় করতে পারত না।

আল-কোরআনে আল্লাহতায়ালা বলেন-

সূরা আন নিসা (মদীনায় অবতীর্ণ)

(০৪:২৯) অর্থ- হে ঈমানদারগণ! তোমরা একে অপরের সম্পদ অন্যায়ভাবে গ্রাস করো না। কেবলমাত্র তোমাদের পরস্পরের সম্মতিক্রমে যে ব্যবসা করা হয় তা বৈধ। আর তোমরা নিজেদেরকে হত্যা (আত্মহত্যা বা একে অপরকে হত্যা) করো না। নিঃসন্দেহে আল্লাহতায়ালা তোমাদের প্রতি অত্যন্ত দয়ালু।           

(০৪:৩০) অর্থ- আর যে কেউ এরূপ জুলুম এবং অন্যায় করবে, তাকে খুব শীঘ্রই আগুনে নিক্ষেপ করা হবে। এটা আল্লাহর পক্ষে খুবই সহজসাধ্য।

(০৪:৩১) অর্থ- যেগুলো সম্পর্কে তোমাদের নিষেধ করা হয়েছে যদি তোমরা সেসব বড় গোনাহ গুলো থেকে বেঁচে থাকতে পার। তবে আমি তোমাদের ক্রটি-বিচ্যুতিগুলো ক্ষমা করে দেব এবং সম্মান জনক স্থানে তোমাদের প্রবেশ করাব। 

এ সম্পর্কে
রাসূল  (সাঃ) বলেন-

1)    Sahih al-Bukhari- Funerals (Al-Janaa'iz)

Narrated Abu Huraira- The Prophet said, "He who
commits suicide by throttling shall keep on throttling himself in the Hell Fire
(forever) and he who commits suicide by stabbing himself shall keep on stabbing
himself in the Hell-Fire."

2)    Sahih al-Bukhari » Oaths and Vows

Narrated Thabit bin Ad-Dahhak- The Prophet said,
"Whoever swears by a religion other than Islam, is, as he says; and
whoever commits suicide with something, will be punished with the same thing in
the (Hell) Fire; and cursing a believer is like murdering him; and whoever accuses
a believer of disbelief, then it is as if he had killed him."

3)    Sahih al-Bukhari » Funerals (Al-Janaa'iz)

Narrated Thabit bin Ad-Dahhak- The Prophet (p.b.u.h)
said, "Whoever intentionally swears falsely by a religion other than
Islam, then he is what he has said, (e.g. if he says, 'If such thing is not
true then I am a Jew,' he is really a Jew). And whoever commits  suicide with piece of iron will be punished
with the same piece of iron in the Hell Fire." Narrated Jundab the Prophet
said, "A man was inflicted with wounds and he committed suicide, and so
Allah said: My slave has caused death on himself hurriedly, so I forbid
Paradise for him."

সুতরাং এর পরেও কি একজন প্রকৃত
মুসলিম আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে
পারেন?

না, কখনই না। যেহেতু আত্মহনন কিংবা অপরকে খুন করা হারাম অর্থাৎ নিষিদ্ধ এবং জন্ম-মৃত্যু মহান স্রষ্টার বেধে দেয়া চিরাচরিত নিয়ম। সুতরাং এই নিয়ম ভঙ্গ করে আত্মহত্যা করা একজন বিশ্বাসীর জন্য শোভা পায় না। পার্থিব সাময়িক যাতনা যতই কষ্টকর হোক না কেন, স্রষ্টার উপর থেকে বিশ্বাস ও ভরসা হারিয়ে তা থেকে মুক্তি পাবার জন্য নিজেই নিজেকে খুন করার সিদ্ধান্ত নেয়া একজন সত্যিকার মুসলিমের পক্ষে কখনই সম্ভব নয়। এরূপ সিদ্ধান্ত নেয়ার মানেই হলো আল্লাহতায়ালার উপরে অনাস্থা জ্ঞাপন করা। একালে সাময়িক শান্তি ও মুক্তির নেশায় আত্মহননের পথ বেছে নেয়ার অর্থই হলো নিজে্ই নিজেকে চরম অশান্তি ও দোজখের যন্ত্রণাদায়ক আযাবের মধ্যে অনন্তকালের জন্য নিক্ষেপ করা। সুতরাং আল্লাহতায়ালার বাণী ও রাসূলের
(সাঃ) বক্তব্য অনুসারে যে আত্মহত্যা করে বা নিজেকে মেরে ফেলার জন্য অন্য কাউকে উদ্বুদ্ধ করে বা সাহায্য নেয়, সে কখনই প্রকৃত ইমানদার হতে পারে না এবং আল্লাহতায়ালা
তার জন্য বেহেশ্তে প্রবেশের পথ বন্ধ করে দেন।

সুতরাং ব্যর্থতা ও যাতনা যতই কঠিন হোক না কেন, ক্ষণকালীন পার্থিব তুচ্ছ স্বার্থের মোহে অধৈর্য হয়ে কাপুরুষের মত আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়া মানেই নিজের কাছে নিজেই হেরে যাওয়া। শয়তানের প্ররোচনায় হার মেনে অমূল্য জীবনকে নষ্ট না কোরে বরং স্রষ্টার উপরে বিশ্বাস ও ভরসা কোরে বিপদ-আপদ ও সমস্যাদি মোকাবেলা করাই একজন বিশ্বাসী ও সাহসী মানুষের পরিচয় বহন করে। সুতরাং আসুন! সর্বাগ্রে স্রষ্টাকে এবং নিজেকে জানতে ও ভালবাসতে শিখি। তাহলে অন্য সকলকে অকৃত্রিমভাবে ভালবাসতে পারব এবং জীবন ও মৃত্যুকে জয় করা সম্ভব হবে। তখন কোন কষ্টকেই আর কষ্ট বলে মনে হবেনা। এরূপ নিরবিচ্ছিন্ন, সরল, শান্ত অথচ শক্ত অন্তরই পরম শান্তির ঠিকানা খুঁজে পায়।

ছবি: 
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (টি রেটিং)

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (টি রেটিং)