আইনশৃংখলা নিয়ন্ত্রণকারী এসআই খুন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দাবী আইনশৃংখলা নিয়ন্ত্রণে আছে

সেদিন একটি টকশো-তে বয়োবৃদ্ধ এক আলোচক আক্ষেপ করে বললেন যে, আর কি খারাপ অবস্থা আসতে পারে আমাদের জন্য যেখানে জীবনের শুরুতেই সকল দিক থেকে নিরাশ হয়ে একটি কিশোরী স্বেচ্ছায় পৃথিবী থেকে চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে পারে! সে বুঝতে পেরেছে যে, তার পিতা-মাতা, ভাই-বোন, আত্মীয়-স্বজন কেউ তাকে রক্ষা করতে পারবে না; এমনকি পুলিশ কিংবা আইনও তার পক্ষে এসে দাঁড়াবে না। এমন ধারনা তার মধ্যে বদ্ধমূল হওয়াতেই সে এ নির্মম পথ বেছে নেয়।

কিন্তু লোকে বলে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলেই দেশজুড়ে বয়ে যায় খুন-ধর্ষণের বন্যা। কয়টির খবর নেজে দেশের মানুষ, এ যেন তখন গা সওয়া হয়ে যায়। আর নিজেদের নিরাপত্তার কথা ভেবে অবস্থা যেন "নিজে বাঁচলে বাপের নাম(মুজিব বাবাও শামিল)"।

আজকের আমারদেশ পত্রিকা খুলে তো আক্কেল গুড়ুম হবার অবস্থা। সারাদিনের টিভি সংবাদ দেখে-শুনে ভাবলাম দেশ বুঝি শান্ত আছিল। কিন্তু একি!

খবর: রাজধানীতে সন্ত্রাসীদের গুলিতে পুলিশের এসআই খুন : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বললেন, আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে আছে

টিপ্পনী: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে যদি এখন সাংবাদিক প্রশ্ন করতেন তবে তিনি হয়ত এমন জবাব দিতেন যে, 'ছিঃ কি যা তা বলছ? খুন-ধর্ষণ হলে কি আইনশৃংখলার কোন নিয়ন্ত্রণ হাতছাড়া হয় না কি? বোকা কোথাকার! দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব, নিরাপত্তা, শান্তি, শৃংখলা, আয়-ব্যয়, লাভ-ক্ষতি, বিদ্যুত-গ্যাস, জানজট, আবহাওয়া-ঘুর্ণিঝড়, আকাশ-বাতাস, রোদ-বৃষ্টি সবই তো নিয়ন্ত্রনহীন হয়ে আছে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়না বলে। বুঝ না কেন, আইনশৃংখলা তো এখন সেদিকেই BUSY.

খবর: আটক নেতাকর্মীদের ছাড়াতে নাশকতা : চবির শিক্ষক বাস জ্বালিয়ে দিয়েছে ছাত্রলীগ কর্মীরা।

টিপ্পনী: দেশ তাদের বাবার, ক্ষমতায় বাপের মেয়ে, বাপের নাতি ডিজিটাল স্বপ্নের প্রশিক্ষণ নিয়ে দেশে ফিরেছে, পুলিশ তাদের, আইন তাদের, আদালত তাদের, বিশ্ববিদ্যালয় তাদের, বাসগুলোও তাদের, পোড়ালে পোড়াইছে তাতে সাংবাদিক বেটার কি? কারণ এটাই হলো 'বাল'-এর ডিজিটাল গণতন্ত্রের নমুনা।


খবর: আওয়ামী যুব ও ছাত্রলীগের তাণ্ডব: মংলায় চিংড়ি ঘের লুট, সাতক্ষীরায় অধ্যক্ষের পদ দখল কক্সবাজার জেলা বার সভাপতির চেম্বারে আগুন

টিপ্পনী: 'এক নেতার এক দেশ'-এর আদলে মুজিবের আওয়ামী শাসনের ঐতিহ্যের সুরক্ষায় মুজিবসেনারা যথেষ্ট তৎপর। এ তো অতি সামান্য!


খবর: স্বাস্থ্য অধিদফতরের জমি আ'লীগ নেতাদের দখলে : পুলিশ ফাঁড়ি এখন দলীয় কার্যালয়

টিপ্পনী: নেতারা হয়ত থানায় চা-পানি খেতে যায় সিডিউল মোতাবেক। এটাকে কেউ একনায়কতন্ত্র অথবা স্বৈরতন্ত্রের নমুনা বললে ডিজিটাল পদ্ধতিতে তাতে গণতন্ত্রের কোনরূপ মানহানি ঘটে না কিনা।


খবর: খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদে আ’লীগ নেতাদের পুনর্বাসন

টিপ্পনী: কি যে বলেন, ওনারা যুদ্ধ করে এ দেশকে অর্জন করেছেন। এখন ওনারা হলেন গিয়ে রাজশক্তি, অনেকটা রাজকীয় আদলে ওনারা এরকম নিয়োগ দিতেই পারেন। কেননা, স্বাধীনতা যুদ্ধ তো শুধুমাত্র আওয়ামীলীগই করেছে, তাই শত হলেও স্বাধীনতা যুদ্ধে নিহত ত্রিশ লক্ষ মানুষের সবাই আওয়ামী লীগার ছিল কি না(!)।

ছবি: 
আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (টি রেটিং)

এটা কোন ব্যাপার না।

ঠিকি বলেছেন । 'বাল' সরকারের জন্য এসব খুব মামুলী ব্যাপার। কারণ আরো বড় বড় ব্যাপারগুলোকেই তো তারা জনগণের নাকের ডগায় সেরে ফেলেন কি না।

খারাপ কিছু বলেননি

ধন্যবাদ সাইফুল এবং লালসালুকে।

হাহাহা

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 4 (টি রেটিং)